ডাটা এন্ট্রি করে সহজেই টাকা আয়

ডাটা এন্ট্রি

অনলাইন দুনিয়ায় কাজ করে লাখো তরুণ ঘুচিয়ে ফেলেছে তার জীবনের বেকারত্বের অন্ধকার।যারা অনলাইন বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জ্ঞান রাখে তাদের কাছে অন্যতম সুপরিচিত শব্দ হলো ডাটা এন্ট্রি।

ডাটা এন্ট্রি অন্যান্য সব সেক্টরের চেয়ে জনপ্রিয় ও।হাজার হাজার তরুণ ডাটা এন্ট্রি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে তাদের ক্যারিয়ার প্রতিষ্ঠিত করেছে।এটি বর্তমানে সম্ভাবনার আলো দেখিয়েছে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেখে যেখানে বেকার সমস্যা প্রকট।

এই সম্ভাবনাময় সেক্টরটি সম্পর্কে জেনে খুব সহজেই ঘরে বসে আপনি নিজেও হয়ে উঠতে পারেন সফল ফ্রিল্যান্সার এবং উপার্জন করতে পারেন ভালো অংকের টাকা।তাই আজ এই আর্টিকেলে আমি আলোচনা করছি ডাটা এন্ট্রি করে সহজেই আয় করা বিষয়ক বিভিন্ন দিক।

তবে,এজন্য প্রথমেই আমাদের জেনে আসা প্রয়োজন ডাটা এন্ট্রি কি?

ডাটা এন্ট্রি কি?

আপনারা অবশ্যই জেনে থাকবেন,অনলাইন যেকোন সাইট গুলোতে অসংখ্য অসংখ্য ডাটা স্টোর করা থাকে।নির্দিষ্ট কোন বিষয় বা সাইট যখন আমরা সার্চ করি তখন সে সম্পর্কে সব ডাটা আমাদের সামনে চলে আসে।এই যে সাজানোগোছানো ডাটার সমাহার সার্চ করা মাত্রই আমরা পেয়ে যাচ্ছি এখানেই মূলত ডাটা এন্ট্রির প্রয়োজনীয়তা।ডাটা এন্ট্রি হল কম্পিউটারের মাধ্যমে নির্দিষ্ট কোন ডাটা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে প্রতিলিপি তৈরি করা। ডাটা এন্ট্রি করে এমন হতে পারে হাতে লেখা কোন তথ্যকে কম্পিউটারের মাধ্যমে টাইপ করা বা কম্পিউটারে কোন একটি প্রোগ্রামের ডাটা একটি স্প্রেডশিট ফাইল সংরক্ষণ করা।

ডাটা এন্ট্রি কেন জনপ্রিয়?

ডাটা এন্ট্রি দিয়েই অনেকের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারের শুরু হয়।আমাদের দেশে সবচেয়ে বেশি ডাটা এন্ট্রির কাজ ই করে থাকেন ফ্রিল্যান্সাররা।এতো বিপুল সংখ্যক মানুষ এ ধরণের কাজের প্রতি আগ্রহী হবার অবশ্যই তো কারন রয়েছে।আসলে ডাটা এন্ট্রি খুব সহজেই শিখে ফেলা যায়।এর জন্য আলাদা কোন ধরণের দক্ষতা লাগে না,জ্ঞানমূলক বিষয়ের ও তেমন অবতারণা নেই।যেকোন শিক্ষাগত যোগ্যতার মানুষ ই এ ধরণের কাজ গুলো সহজে শিখতে এবং করতে পারবে।

ডাটা এন্ট্রি কি এ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারনা আশা করি আপনারা পেয়েছেন।এখন আসুন,জেনে নিই ডাটা এন্ট্রি জব সম্পর্কে।

প্রথমেই জেনে নেয়া যায় ডাটা এন্ট্রি জবে একজন প্রফেশনালকে কি কি দায়িত্ব পালন করতে হয়।

ডাটা এন্ট্রি জবে দায়িত্বসমূহ

  • ডাটা এন্ট্রির জন্য তথ্যগুলোকে প্রস্তুত করা
  • ডাটা ইনপুট ও এডিট করা
  • ডাটা চেক করা এবং সংশোধন প্রয়োজন হলে তা কারেকশন করা
  • প্রয়োজনীয় ডাটার স্ক্যানিং
  • প্রয়োজন হলে প্রিন্টিং কপি বের করা
  • ডাটা এন্ট্রি প্রফেশনাল হিসেবে অবশ্যই ডাটার প্রাইভেসি রক্ষা করা অন্যতম একটি দায়িত্ব
  • চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রস্তুত করা

ডাটা এন্ট্রির কাজের ধরণ

ডাটা এন্ট্রি মূলত দুইভাবে করা যায়।

আরো পড়ুন ;- অনলাইনে ইনকাম করার ৩১ টি উপায় – ২০২২

রিমোট ফ্রিল্যান্সার হিসেবে

  • একজন রিমোট ওয়ার্কার কিংবা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনি ঘরে বসে কিংবা যেকোনো জায়গা থেকে কাজ করতে পারবেন।
  • আপনার পছন্দমতো সময়ে কাজ করতে পারবেন।
  • সাধারণত রিমোট কাজে কীস্ট্রোক অনুযায়ী বা প্রজেক্ট অনুযায়ী পে করা হয়।
  • রিমোট ওয়ার্কারদের নির্ভরযোগ্যতা, কাজের দক্ষতা ও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার প্রবণতাকে গুরুত্ব দেয়া হয়।
  • একাডেমিক পড়াশোনা অথবা ফুলটাইম চাকরিজীবী হওয়ার পাশাপাশি রিমোট ডাটা এন্ট্রির চাকরি আপনাকে আরও বেশি উপার্জনের সুযোগ করে দিতে পারে।

ফুল টাইম ওয়ার্কার হিসেবে

  • রিমোট কাজ না হলে সাধারণত ঘণ্টা হিসেবে পে করা হয়।
  • এক্ষেত্রে বোনাস, ছুটি, স্বাস্থ্য সুবিধাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাওয়া যায়।
  • কাজের গতি, নির্ভরযোগ্যতা ও নির্ভুলতাকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়।

ডাটা এন্ট্রি কাজের জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা

ডাটা এন্ট্রি যদিও খুব কারিগরি জ্ঞান সমৃদ্ধ কাজ নয়।তবে কিছু বিষয়ে দক্ষতা থাকলে সহজেই ডাটা এন্ট্রি ফিল্ডে ভালো করা সম্ভব।আসুন জেনে নিই কি কি বিষয়ে দক্ষতা আপনাকে অন্যান্য ওয়ার্কারদের থেকে এগিয়ে রাখবে।

  • দ্রুত টাইপ করার অভ্যাস
  • ইন্টারনেট ব্রাউজিং দক্ষতা
  • মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ও এক্সেল ব্যবহারে দক্ষতা
  • ইংরেজি বুঝতে পারার মতো জ্ঞান
  • বিভিন্ন ফোরাম ও ওয়েবসাইট সম্পর্কে প্রাথমিক ধারনা।

ডাটা এন্ট্রি নিয়ে আশা করি সকল জিজ্ঞাসার উত্তর উপরিউক্ত লেখায় দিতে পেরেছি।এখন পর্যায়ক্রমে জেনে নিই,ডাটা এন্ট্রি করে কিভাবে আয় করা যায়।

সার্ভে/অনলাইন সার্ভে

সার্ভে বা অনলাইন সার্ভের কথা আমরা অনেকেই শুনেছি।এ ধরনের সার্ভের কাজ ও মূলত ডাটা এন্ট্রি জবের অন্তর্ভুক্ত। এ ধরনের কাজে,মূলত প্রজেক্ট সম্পর্কিত কিছু তথ্য অনুসন্ধান করা হয়ে থাকে।

ডাটা কালেকশন

ডাটা কালেকশন করেও আপনি চাইলে ঘরে বসে অর্থ আয় করতে পারবেন।এক্ষেত্রে বিভিন্ন উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহের কাজটি মূলত করতে হয়।

ক্যাপচা এন্ট্রি

বাড়তি উপার্জনের জন্য ক্যাপচা এন্ট্রির কাজ করতে পারেন। এ কাজ করে আপনি মাসে ১৫০০০-২০০০০  টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে, অবশ্যই আপনার টাইপিং স্পিড ভালো হতে হবে। কেননা, টাইপিং স্পিডের উপর নির্ভর করে আপনার আয় উঠা নামা করবে।

ডেটা মাইনিং ও ডেটা স্ক্র‍্যাপিং

ডেটা মাইনিং কম্পিউটার বিজ্ঞানে অপেক্ষাকৃত একটি নতুন সংযোজন। পরিসংখ্যান এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগ করে বিপুল পরিমাণ উপাত্ত থেকে নতুন প্যাটার্ন আবিষ্কারের কাজটি করা হয় ডেটা মাইনিংয়ের মাধ্যমে। ডেটা মাইনিং হল ডেটার বিশ্লেষণের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করার জন্য নিদর্শন সনাক্ত এবং সম্পর্ক স্থাপন করার জন্য বৃহৎ ডেটা সেটগুলির মাধ্যমে সাজানো প্রক্রিয়া।

এ ধরণের কাজের জন্য এখনো সবসময় কম্পিউটার টুল ব্যবহার করা হয় না।ডাটা এন্ট্রি জবের মধ্যে তাই এ ধরণের ডাটা মাইনিং এর কাজ ও অন্তর্ভুক্ত।

ডেটা স্ক্র্যাপিং সাধারণত ওয়েব স্ক্র্যাপিং-এ প্রকাশ পায়, একটি ওয়েবসাইট থেকে মূল্যবান তথ্য বের করার জন্য একটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার প্রক্রিয়া।এ ধরনের কাজ ও ডাটা এন্ট্রি জব হিসেবে করা হয়ে থাকে।

টাইপিং

এ ধরনের ডাটা এন্ট্রি চাকরিগুলোতে মূলত প্রতি মিনিটে 45 টি করে শব্দ টাইপ করতে হয়। ট্রানস্ক্রিপশনিস্ট ব্যাটা এপিস্পদে জন্য প্রতি মিনিটে গড়ে 60 থেকে 90 টি শব্দ লিখতে পারতে হয় ।

তাই টাইপিং অনুশীলন করা জরুরি।

ইমেজ থেকে টেক্সট ডাটা এন্ট্রির কাজ

এই কাজের জন্য আপনাকে একটি ছবি প্রদান করা হবে। ছবিটি হইতে পারে কোন স্ক্রিনশট বা স্ক্রিনশট ছাড়া। আপনাকে সেই ছবি থেকে ভালো করে পড়ে এম এস ওয়ার্ড ডকুমেন্টে টাইপিং করতে হবে।

তবে আপনাকে মনে রাখতে হবে এই ছবির লেখা গুলো অনেকটা ক্যাপচা কোডের মতো অস্পষ্ট থাকবে। সেটি আপনি সঠিক ভাবে ওয়ার্ড ফাইলে লিখতে হবে।

অডিও শুনে ডাটা এন্ট্রি

এক্ষেত্রে আপনাকে কাজ অফারকারী ক্লাইন্ট,একটি বড় অডিও ফাইল প্রদান করবে।যা থেকে শুনে শুনে হুবহু সেসব তথ্য আপনাকে মাইক্রোসফট ফাইলে লিখতে হবে। মূলত এ ধরনের কাজ গুলোতে অডিও শুনে ইংলিশে তথ্য লিখতে হয়।

ই-মেইল প্রসেসিং

বর্তমানে ইমেইল প্রসেসিং একটি জনপ্রিয় ডাটা এন্ট্রির কাজ। ইমেইল প্রসেসিং জবস ডাটা এন্ট্রির কাজে একটি সহজ প্ল্যাটফর্ম এখানে আপনার ইমেইলে আপনাকে অনেক ওয়েবসাইটের লিংক দেওয়া হবে।

আপনার কাজ হবে এই সকল লিংক গুলোতে ক্লিক করতে হবে এবং প্রতিটি ওয়েবসাইটে যেতে হবে এবং প্রতিটি ওয়েবসাইটে অন্তত ৩০-৪০ সেকেন্ড এর জন্য থাকতে হবে এবং টাকা প্রদান করতে হবে।

এছাড়া সকল ওয়েবসাইটের বিষয় বস্তু খুজে বের করে ইমেইল চেক করতে একটি এক্সেল শীট দেওয়া হবে সেখানে তালিকা তৈরি করে প্রতিদিন শত শত ইমেল প্রসেসিং করতে হবে।

আপনি যখন হাজার হাজার ইমেল প্রসেসিং এক্সেল শীটে শ্রেণি ভুক্ত করতে পারবেন তখন অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ইমেইল প্রসেসিং এর কাজ মুলত Upwork এ করা হয়। আপনি যদি এই ওয়েবসাইটে আগ্রহী হন তবে আজ থেকেই ই-মেইল প্রসেসিং ডাটা এন্ট্রি শুরু করতে পারেন।

মাইক্রোজব

যারা কম্পিউটার টাইপিং বিষয়ে চাকরি খুঁজছেন তাদের জন্য মাইক্রো জব অন্যতম ভুমিকা পালন করে ডাটা এন্ট্রির কাজের জন্য। মাইক্রো জবের ওয়েবসাইট গুলোতে আপনি একজন ডাটা এন্ট্রি কর্মী হিসেবে যোগদান করতে পারেন।

শেষ কথা

উপরিউক্ত কাজ গুলোর মধ্যে এক বা একাধিক কাজ জানা থাকলে ঘরে বসেই আপনিও ডাটা এন্ট্রি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার অবসরে অর্থ আয় করতে পারেন।আবার,ফুল টাইম কাজ করে সফল ডাটা এন্ট্রি ওয়ার্কার হিসেবে ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেন।

যদিও ডাটা এন্ট্রি সহজ হলেও বেশ সময় ক্ষেপণকারী কাজ।আবার এটাও বলা হয়ে থাকে, অদূরভবিষ্যতে এ ধরনের সিস্টেমেটিক ডাটা এন্ট্রি কাজের জন্য বিভিন্ন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার বা রোবট বানানো হবে এবং তখন এসব টুল দ্বারা এই ধরনের কাজ গুলোকে সম্পন্ন করা হবে ডাটা এন্ট্রি ফ্রিল্যান্সারদেরকে রিপ্লেস করে।তাই একটু ঝুঁকির সম্ভাবনা এক্ষেত্রে থেকেই যায়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *