ওয়েব সিরিজ কি ? ওয়েব সিরিজ কিভাবে দেখা যায়?

ওয়েব সিরিজ কি

বর্তমানে ইন্টারনেটে বিনোদনের যতোগুলো উৎস রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হলোওয়েব সিরিজ। এক রকম বলতে গেলে ওয়েব সিরিজ,ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রির একটি অল্টার্নেটিভ কম্পিটর।এটি খুবই লো বাজেটের ভেতরে তৈরী করা হলেও,অনেক কোয়ালিটিসম্পন্ন এবং এর ভেতরকার গল্প বা প্লট। 

প্রশ্ন হলো,

ওয়েব সিরিজ কি ?  

খুবই সিম্পলভাবে বলতে গেলে,ওয়েব সিরিজ হলো অনলাইন ভিত্তিক প্লার্টফর্মে ধারাবাহিক ভাবে আপলোড করা ভিডিও,যেগুলোকে কয়েকটি সেগমেন্টে ভাগ করে সম্প্রচার করা হয়। ওয়েব সিরিজ অনলাইনভিত্তিক হওয়ার কারণে এটি সবার জন্যে উন্মুক্ত,তবে ওয়েব সিরিজ দেখতে হলে অবশ্যই প্লার্টফর্মে মাসিক সাবস্ক্রিপশন প্যাকেজ কিনতে হয়। 

একটি ওয়েবসিরিজ বাস্তবভিত্তিক হতে পারে,আবার একটি কাল্পনিক গল্পের উপরও নির্মান করা যেতে পারে।

প্রশ্ন হলো এই ওয়েব সিরিজের সার্থকতা কোথায়? এটির সাথে তথ্য-প্রযুক্তি কেনো এতোটা সম্পৃক্ত?

ওয়েব সিরিজের স্বার্থকতা এটাই,যে এখানে গল্পভিত্তিক চলচিত্র থাকার ফলে এটি সনাতনি চলচিত্রের একটি বিকল্প হতে পারে বা হয়েছে। 

এটির সাথে তথ্য-প্রযুক্তির সম্পৃক্ততা দুইভাবে বিশ্লেষন করা যেতে পারে। 

  • প্রথমত এটি অনলাইন ভিত্তিক – অর্থাৎ ইন্টারনেট এক্সেসের মাধ্যমে দেখা যায়।
  • আর দ্বিতীয়তঃ 

যেমনটা কি আমরা সবাই যে,ইকমার্সের বদৌলতে এখন ঘরে বসে দৈনন্দিন জীবনের যাবতীয় পন্য অর্ডার করা যায় – এর জন্য স্বশরীরে দোকানে বা মলে যাওয়ার দরকার পড়ে না। ঠিক তেমনই ধারনকৃত চলচিত্রের মাধ্যমে বিনোদন উপভোগ করতে হলে এখন আর স্বশরীরে সিনেমা হলে যাওয়ার প্রয়োজন পড়বেনা – বরং চাইলে আপনি ওয়েব সিরিজের মাধ্যমে তা ঘরে বসে আপনার মোবাইল ফোনে তা উপভোগ করতে পারবেন। 

 বাংলা ওয়েব সিরিজ

বাংলা ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রিতে ধস নামার পর থেকেই বাঙালী দর্শকদের বিনোদনের একমাত্র উৎস ছিলো হবাংলা নাটক এবং আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশের কিছু অখ্যাত ধারাবাহিক নাটক।

কিন্তু ২০১৫-১৬ সালের পর থেকে ধিরে-ধিরে বাংলা নাটকের মান কমতে শুরু করে। কেননা তখন বিভিন্ন বস্তাপচা নাটকে বাজার সয়লাব হয়ে যায়। 

সৌভাগ্যের বিষয় এই যে,বর্তমানে বাংলাওয়েব সিরিজগুলো বাংলাদেশের দর্শকদের এই খোরাকপূরণ করতে সক্ষম হয়েছে। 

হৈচৈ, বিং-এ এই ধরণের প্লার্টফর্মগুলো বাংলা ওয়েব সিরিজগুলো প্রচুর পরিমানে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক এমনই কিছু বাংলা ওয়েব সিরিজের কথা ,যেগুলো দুই বাংলার মানুষকে একই বন্ধনে আবদ্ধ করেছিল। 

মহানগর ওয়েব সিরিজ

মহানগর ওয়েব সিরিজ ২০২২ সালে ২৫শে জুন বাংলাদেশ ও ভারতে মুক্তি পায় জনপ্রিয় ওটিটি প্লার্টফর্ম হৈচৈ তে । মহানগর ওয়েবসিরিজটি ৮ পর্বের একটি ওয়েব সিরিজ যেখানে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের খ্যাওনামা নাট্যশিল্পী মোশশারফ করিম। 

এছাড়া আট পর্বের এই ওয়েব সিরিজে একমাত্র মূল অভিনেত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাকিয়া বারি মোমো । 

মরীচিকা ওয়েব সিরিজ

মরীচিকা বাংলাদেশে নির্মিত চরকি ওটিটি প্লার্টফর্মে রিলিজকৃত ৮ পর্বের একটি ওয়েব সিরিজ । যেখানে মূল চরিত্রগুলোতে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশী চলচিত্র শিল্পী মাহিয়া মাহি এবং বাংলাদেশের জনপ্রিয় নাট্য শিল্পী আফরান নিশো। 

২০২১ সালের ২১শে জুলাই এটি রিলিজ করা হয় । 

দৌড় ওয়েব সিরিজ

বাংলাদেশ-ভারতের জনপ্রিয় ওটিটি প্লার্টফর্ম হৈচৈ এ দৌড় ওয়েব সিরিজ রিলিজ করা হয়। যেটি ৯ পর্বের একটি ওয়েব সিরিজ । এই ওয়েব-সিরিজটিটে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের খ্যাতনামা নাট্য শিল্পী মোশাররফ করিম । 

দৌড় ওয়েব সিরিজটি বাংলাদেশে খুব একটা জনপ্রিয়তা অর্জন না করলেও এটি ভারতে বেশ ভালোই সারা ফেলে দেয়। 

বাংলা ওয়েব সিরিজ

শ্রীকান্ত ওয়েব সিরিজটি মূলত একটি ডাবিংকৃত ওয়েবসিরিজ – যেটি বাংলা সহ তামিল ভাষাতেও ডাবিং করা হয়েছে । 

শ্রীকান্ত ওয়েব সিরিজ হৈ-চৈ প্লার্টফর্মের সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েব সিরিজ । যে ওয়েব সিরিজটি দেখার জন্য প্রায় ৩ লক্ষ মানুষ হৈচৈ এর সাবসক্রিপশন কিনেছিলো। 

ওয়েব সিরিজ কিভাবে দেখা যায়?

ওয়েব সাইট দেখার বেশ কয়েক রকমের প্লার্টফরম রয়েছে। বাংলাদেশ ও ভারত মিলিয়ে হাতে গোনা ৩-৪ টি ওটিটি প্লার্টফর্ম রয়েছে – যেগুলোর সাবস্ক্রিপশন তুলনামূলক ভাবে অঙ্ক কম । 

এছাড়াও রয়েছে বিদেশী অর্থাৎ আন্তর্জাতিক কিছু প্লার্টফর্ম। নিচে ওয়েব সিরিজের একটি তালিকা দেওয়া হলঃ

  • হৈচৈ
  • বিং এ 
  • চরকি
  • ডিজনি
  • হটস্টার
  • ভুট
  • বায়োস্কোপ

আরো অনেক । 

ওটিটি প্লার্টফর্মের ভিডিও দেখতে হলে কি করণীয়?

  • প্রথমে আপনাকে আপনার পছন্দের ওটিটি প্লার্টফর্মের সাইটে ব্রাউজ করতে হবে। আমি এক্ষেত্রে হৈ চৈ ব্যবহার করবো।

এরপর কিছু টা এমন ইন্টারফেস দেখাবে। 

  • এরপর সেখান থেকে আপনাকে লাল রঙের সাবস্ক্রাইব বাটনে ক্লিক করতে হবে । 

এক বছরের জন্য দুইটি প্ল্যান এখানে রয়েছে । আপনি আপনার চাহিদা মোতাবেক প্ল্যান সেলেক্ট করে নিতে পারেন ।

চাইলে দেশীয় প্লার্টফর্মগুলিতে মোবাইল ব্যাংকিং যেমন বিকাশ , নগদ বা রকেট দিয়ে সাবসক্রিপশন কিনে নিতে পারেন খুব সহজে।

এরপর আপনি যতো খুশী ততো ওয়েব সিরিজ দেখতে পারেন। 

জেনে নিনঃ

বিঃদ্রঃ পর্যাপ্ত ভ্যাট ও সার্চ চার্জ রয়েছে। 

আমাদের দেশের বেশ কিছু ওয়েব সিরিজ ভারতেও তুলুম জনপ্রিয়তা কুড়িয়েছিলো । সুতরাং সেই হিসেবে বলাই চলে , ফ্লিম ইন্ডাসট্রিতে বাংলাদেশের খুব একটা উন্নতি সাধিত না হলেও দেশের ওয়েব সিরিজগুলোর ভবিষ্যত মোটামোটি উজ্জ্বল বলা যেতে পারে। 

কাজেই অবশ্যই আমাদেরকে ওয়েব সিরিজগুলোকে সাপোর্ট করত হবে -অন্তত পক্ষে দেশের মানুষের বিনোদনের খোরাক পূরণের লক্ষ্যে ! 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *